Zinedine Zidane : ট্র্যাজিক নায়ক, চরম কুৎসিত মন্তব্য শুনেই গুঁতো ঠান্ডা মাথার জিদানের! স্বীকার মাতেরাজ্জির – former italian defender marco materazzi on infamous headbutt, zinedine zidane asked me if i wanted his shirt, i said i wanted his sister

0
11
Print Friendly, PDF & Email

এই সময় ডিজিটাল ডেস্ক: ১৪ বছর পেরিয়ে গিয়েছে সেই রাতের। ২০০৬-এর ফুটবল বিশ্বকাপ ফাইনালের সেই রাত কোনও এক অতিমানব জিনেদান জিদানকে বানিয়ে দিয়েছিল খলনায়ক। বিশ্বকাপ তো পানইনি, বরং বিপক্ষ ডিফেন্ডারের বুকে ঢুঁসো মেরে লাল কার্ড দেখা, ফুটবল কেরিয়ার প্রায় থমকে যাওয়া- কতকিছুই যে ঘটে গিয়েছিল ক্রীড়ামোদীদের প্রাণপ্রিয় জিজুর জীবনে! অনেকেই বলেছিলেন, জিদানের থেকে এ জিনিস অপ্রত্যাশিত। অনেকেই বলেছিলেন, জিদানের জন্য বিশ্বকাপ পেল না ফ্রান্স। সত্যিই কি জিদান খলনায়ক? নাকি সেদিনের সেই ঢুঁসোর পিছনে ছিল কোন পরিকল্পিত চক্রান্ত?

সেদিনের জিদানের সেই গুঁতো খাওয়া ইতালির ডিফেন্ডার মার্কো মাতেরাজ্জি ১৪ বছর পর মুখ খুললেন। আর জানিয়ে দিলেন, জিদান নয়, সেদিন তাঁকে ওই কাজ করতে বাধ্য করেছিলেন মাতেরাজ্জি নিজেই। ইতালিয়ান সংবাদমাধ্যম প্যাশন ইন্টারকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে বিস্ফোরক স্বীকারোক্তি দিয়েছেন মাতেরাজ্জি। বলেছেন, ‘সেদিন জিদানকে আটকানোর দায়িত্ব ছিল আমার উপর। কিন্তু বারবার ব্যর্থ হচ্ছিল। সেজন্যে গাটুসো আমাকে বকছিল। আমি বারবার জিদানের জার্সি ধরে টানছিলাম। শেষে বিরক্ত হয়ে জিদান জিগ্যেস করল, তুমি কি আমার শার্টটা নিতে চাইছ? আমি তখন বলি, শার্ট নয়, আমি তোমার বোনকে চাইছি।’

মাতেরাজ্জির কথায়, এরপরই রণংদেহী মূর্তি ধারণ করে জিদান তাঁকে গুঁতো মারেন। সেই দিনের জন্য কিছুটা অনুতপ্তও মাতেরাজ্জি। তবে তাঁর সাফ কথা, ‘প্রতিপক্ষকে হারাতে তো চাইছিলামই। তাই অশান্তি হোক, এমনটা চাইছিলাম। জয়ের পর আনন্দে ভেসে গিয়েছিলাম।’ তবে, এত বছর পর জিদানের বিষয়ে আসল তথ্য প্রকাশ করে মাতেরাজ্জি প্রমাণ করে দিলেন, পরিবারের সদস্যের নামে কুৎসিত কথা শুনেই ধৈর্যচ্যুতি জিদানের। হ্যাঁ, ঠান্ডা মাথার জিজুর।



Source link