cop martyred : লকডাউনের মধ্যেই উত্তপ্ত হান্দওয়ারা, শহিদ ৫ ভারতীয় সেনা, খতম ২ সন্ত্রাসবাদী – 5 army personnel, cop martyred in kashmir’s handwara, 2 terrorists killed

0
20
Print Friendly, PDF & Email

এই সময় ডিজিটাল ডেস্ক: করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ রুখতে দেশজুড়ে লকডাউন চলেছে। এর মাঝেই সংঘর্ষবিরতি লঙ্ঘন করে গোলাগুলি ছোঁড়ার পাশাপাশি সীমান্তের ওপার থেকে জঙ্গি অনুপ্রবেশ করানোর চেষ্টা করছে পাকিস্তান। কাশ্মীরের বিভিন্ন জায়গাতে নাশকতা সৃষ্টির চেষ্টা চালাচ্ছে তাদের মদতপুষ্ট জঙ্গিরা। শনিবার সন্ধ্যাতেই কাশ্মীরের হান্দওয়াড়ায় বিপুল সংখ্যক জঙ্গির হদিশ পেয়েছে ভারতীয় বাহিনী। হান্দওয়াড়ার একাধিক বাড়িতে ওই জঙ্গিরা আশ্রয় নেয় বলে খবর পাওয়া যায়। ভারতীয় সেনা সূত্রে খবর, নিরাপত্তা বাহিনীর ঘেরাটোপে রয়েছে জঙ্গিরা। এর পর দুপক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ শুরু হয়। পালটা জবাব দেয় ভারতীয় সেনা। পাক সন্ত্রাসবাদীর ছোড়া গুলিতে নিহত হয় চার জওয়ান। অন্যদিকে নিকেশ করা হয় দুই জঙ্গিকেও। রবিবার সকালে খবরটি পাওয়া গিয়েছে।

সূত্রের খবর, সীমান্ত পেরিয়ে পাকিস্তান থেকে জঙ্গিদের একটি বড়সড় দল কাশ্মীরে যে অনুপ্রবেশ করেছে, সে খবর ভারতীয় সেনা বাহিনীর কাছে ছিল। গোয়েন্দা সূত্রে পাওয়া সেই খবরের ভিত্তিতেই গত কয়েক দিন ধরে হান্দওয়াড়ার ঘন জঙ্গল ও গ্রামগুলিতে ছানবিন করে জঙ্গিদের খোঁজ চলছিল। অবশেষ শনিবার বিকেলে জঙ্গিদের উপস্থিতি সম্পর্কে নিশ্চিত হয়ে, জোরদার অপারেশনে নামে বাহিনী। এর পর সংঘর্ষে মৃত্যু হয় চার সেনার। মৃতদের মধ্যে একজন কম্যান্ডিং অফিসার, একজন ২১ রাষ্ট্রীয় রাইফেল, ২ সেনা ও একজন জম্মু-কাশ্মীরের পুলিশের প্রাণহানি হয়েছে বলে খবর পাওয়া গিয়েছে। এ দিন সেনার এক আধিকারিক জানিয়েছেন, সন্ত্রাসবাদীদের সঙ্গে সংঘর্ষে চার ভারতীয়ের মৃত্যু হয়েছে। নিহত হয়েছে দুই সন্ত্রাসবাদী।

প্রসঙ্গত, কাশ্মীরের একাধিক জায়গায় একাধিক আত্মঘাতী হামলার ছক কষেছে পাক মদতপুষ্ট সংগঠন জইশ-ই-মহম্মদ। গোয়েন্দারা জইশের এই মারাত্মক পরিকল্পনার কথা ফাঁস করে, নিরাপত্তা বাহিনীকে ইতিমধ্যে সতর্ক করেছেন।


গোয়েন্দা আধিকারিক জানিয়েছেন, ১১ মে দিনটিকে মাথায় রেখে এরই মধ্যে ২৫ থেকে ৩০ জঙ্গি কাশ্মীর সীমান্ত দিয়ে ভারতে ঢুকে পড়েছে। পাকিস্তান সেনার সাহায্য নিয়ে তারা ভারতে অনুপ্রবেশ করে। একসঙ্গে না ঢুকে, বিগত কিছুদিন ধরে ভাগে ভাগে জইশ জঙ্গিরা ভারতে ঢুকছে। ভারতীয় সুরক্ষা বাহিনীর সঙ্গে সংঘর্ষে একমাসে বড় সংখ্যক জঙ্গি মারাও পড়েছে। সূত্রের খবর, জইশের টার্গেট হল, সামনের কয়েক দিনের মধ্যে ভারতে সত্তরের বেশি জঙ্গি ঢোকানো।



Source link