করোনার হানায় ঘোর বিপদে এক চিকিৎসকের পরিবার

0
51
Print Friendly, PDF & Email

করোনাকালের সবচেয়ে কঠিন ও বেদনাদায়ক পরিস্থিতি মোকাবেলা করতে হচ্ছে কক্সবাজারের এক চিকিৎসক পরিবারকে। করোনার নির্মম ছোবলে সদ্য পিতা হওয়া ওই ডাক্তার, তার স্ত্রী ও সন্তানের ঠাঁই হলো আলাদা আলাদা তিন হাসপাতালে।

চট্টগ্রামে শুক্রবার (১ মে) শনাক্ত হওয়া ৩ জনের মধ্যে রাহাত্তারপুল এলাকার যে নারীর খোঁজ মিলছিল না বলে জানানো হয়েছিল তিনি একজন চিকিৎসকের স্ত্রী। সদ্য সন্তান জন্ম দেওয়া ওই নারী নগরীর একটি বেসরকারি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ছিলেন। করোনা শনাক্ত হওয়ার পর তাকে ওই হাসপাতাল থেকে চট্টগ্রাম জেনারেল হাসপাতালে স্থানান্তরিত করা হয়েছে। তবে শিশুটিকে ওই বেসরকারি হাসপাতালের আইসিইউ ওয়ার্ডে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে। অন্যদিকে তার ডাক্তার স্বামী আগে থেকেই করোনা পজেটিভ হয়ে চট্টগ্রাম ফিল্ড হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছেন।

সিভিল সার্জন কার্যালয় থেকে শুক্রবার রাতে জানানো হয়েছিল, ওই নারীর বাসা চট্টগ্রাম নগরীর রাহাত্তারপুল এলাকায়। রাতে কোনভাবে ওই নারীর সন্ধান না পাওয়ার কথা জানিয়েছিলেন সিভিল সার্জন। এ সময় তার মোবাইলও বন্ধ পাওয়া যায়। শনিবার সকালে জানা যায় ৩২ বছর বয়সী ওই নারী নগরীর একটি বেসরকারি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

চট্টগ্রাম জেলার সিভিল সার্জন ডা. সেখ ফজলে রাব্বী চট্টগ্রাম প্রতিদিনকে বলেন, ‘কাল রাতে যে রোগীর সন্ধান পাওয়া যাচ্ছিলো না সকালে তার খোঁজ পেয়েছি আমরা। একটি বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি ছিলেন ওই নারী। সেখানে অস্ত্রোপচারের মাধ্যমে সন্তানের জন্ম দেন তিনি। তাকে করোনাভাইরাস (কোভিড-১৯) চিকিৎসার জন্য নির্ধারিত জেনারেল হাসপাতালে নেওয়া হয়েছে। তবে শিশুটি বেসরকারি হাসপাতালের আইসিইউ ওয়ার্ডে আছে।’

গত রাতে ওই নারীর বাসা নগরীর রাহাত্তারপুল এলাকায় বলা হলেও তার বাসা মূলত কোতোয়ালি থানার জামালখান এলাকার হেমসেন লেইনে।

সেখ ফজলে রাব্বি বলেন, ‘তার ঠিকানা দেওয়া ছিল রাহাত্তারপুল। হয়তো তিনি কোন কারণে ভুল তথ্য দিয়েছেন। অথবা তথ্য সংগ্রহকারী ভুল করেছেন। তার বাসা কোতোয়ালী থানার হেমসেন লেইনে। তবে তাদের ওই বাসায় এখন কেউই নেই। ওই নারীর স্বামীও কোভিড-১৯ আক্রান্ত হয়ে চট্টগ্রামের ফিল্ড হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।’

জানা গেছে, আক্রান্ত ওই নারীর স্বামী কক্সবাজারে একটি হাসপাতালের চিকিৎসক। স্ত্রীর মাতৃত্বকালীন অসুস্থতার জন্য তারা বেশ কয়েক মাস ঢাকায় ছিলেন। সেখানেই ওই চিকিৎসকের করোনাভাইরাস সংক্রমণ ধরা পড়ে। গত ২৬ এপ্রিল তারা ঢাকা থেকে চট্টগ্রামে চলে আসেন। ওই নারীর স্বামী ফৌজদারহাট ফিল্ড হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।

এর মধ্যে স্বামীর অবস্থা এখন অনেকটা ভাল বলে জানিয়েছেন ফিল্ড হাসপাতালের উদ্যোক্তা ডা. বিদ্যুৎ বড়ুয়া চট্টগ্রাম প্রতিদিনকে বলেন, ‘ডাক্তার সাহেবের একটা টেস্ট এরই মধ্যে নেগেটিভ এসেছে। আরেকটা টেস্টের জন্য তার নমুনা পাঠানো হয়েছে। আশা করছি তিনি দ্রুত সময়ের মধ্যে সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরবেন।’

এআরটি/সিপি

Source link